বইপ্রেমীদের পদচারণায় সরগরম সিলেট বইমেলা

দেশদর্পণ ডেস্ক: তৃতীয় দিনের মত চলছে সিলেট বইমেলা। বেলা তিনটা থেকে মেলা শুরু হয়। সময় বাড়ার সাথে সাথে বইপ্রেমীদের পদচারণা বাড়তে থাকে মেলা প্রাঙ্গণে। বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা হলেই ক্রেতা, দর্শনার্থী, লেখক, পাঠকদের সমাগম বাড়তে থাকে।

সোমবার বেলা তিনটা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত নগরীর চৌহাট্টাস্থ সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বইমেলায় প্রায় সব ধরনের শ্রেণী পেশার মানুষের সমাগম ঘটে।

সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় সিলেট বন্ধুসভার সভাপতি তামান্না ইসলামের সঞ্চালনায় বঙ্কিমচন্দ চট্টোপাধ্যায়ের ‘দুর্গেশনন্দিনী’ বই পাঠ করেন সিলেট বন্ধুসভার বন্ধু  ফারিহা রহমান। সিলেট বন্ধুসভার সাবেক সভাপতি শাহ সিকান্দার শাকিরের সঞ্চালনায় লেখকের সাথে আড্ডায় উপস্থিত ছিলেন ফাঁদ বইয়ের লেখক এনামুল হক এনাম। মেলায় কবিতা আবৃত্তি করেন খাদিজাতুল কুবরা মিম।


মেলায় প্রতিদিনের সেলফি প্রতিযোগীতার বিজয়ী আবু সেলিমের হাতে পুরস্কার তুলে দেন উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী সিলেটের সভাপতি এনায়েত হাসান।উল্লেখ্য, ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ১৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রতিদিন বেলা তিনটা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত চৌহাট্টাস্থ সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মেলা চলবে। এই মেলা সবার জন্য উন্মুক্ত। বইমেলায় এবারও সিলটিভি প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭টা থেকে নতুন বইয়ের খবর নিয়ে লাইভ দিবে। এছাড়াও প্রতিদিন মেলায় থাকবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সাহিত্য আড্ডা, আলোচনা সভা, শিশুদের আবৃত্তি, চিত্রাঙ্কন, ফটোগ্রাফি ও সেলফি প্রতিযোগিতা ও নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন।

মেলায় ঢাকা ও সিলেটের ২৪টি প্রকাশনা ও বই বিপণন প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করে। অংশগ্রহণকারী প্রকাশনা সংস্থা এবং বইয়ের বিপণনপ্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে- প্রথমা, কথা প্রকাশ, উৎস প্রকাশন, অন্বেষা প্রকাশন, অ্যাডর্ন পাবলিকেশন,আদর্শ, বাবুই, চৈতন্য, নাগরী, বাসিয়া প্রকাশনী, শ্রীহট্ট প্রকাশ, ঘাস প্রকাশন, পা-লিপি প্রকাশন, পাপড়ি, এক রঙা এক ঘুড়ি, স্বরে ‘অ’, আহরার পাবলিশার্স, জসিম বুক হাউস, সাহিত্য রস প্রকাশনা, গার্ডিয়ান পাবলিকেশন্স, শাকিল বুক সেন্টার, সিলেট বুক সেন্টার, মারুফ লাইব্রেরি ও নাজমা বুক ডিপো।

মুজিববর্ষ উপলক্ষে এবছর সিলেট বইমেলা উৎসর্গ করা হয় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে। মেলা আয়োজনে সহযোগিতা করছে সিলেট সিটি করপোরেশন।